জেলা প্রশাসনের সিটিজেন চার্টার

শাখার নাম: সাধারণ শাখা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
নাগরিক সেবা

সাধারণ শাখার সম্পাদিত কাজ ও প্রদত্ত নাগরিক সেবাসমূহ :

 

ক্রমিক নং

সেবার নাম

সেবা প্রাপ্তি প্রক্রিয়া

সেবা প্রাপ্তির জন্য প্রয়োজনীয় সময়

কেন্দ্রীয় পত্র গ্রহণ ও বিতরণ

জেলা প্রশাসক বরাবর বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/দপ্তর/বিভাগ এবং সর্বসাধারণের কাছ হতে প্রাপ্ত চিঠিপত্র নিয়মিত জেলা প্রশাসক মহোদয়ের ডাকফাইলে উপস্থাপন

জেলা প্রশাসক মহোদয়ের স্বাক্ষরের পর পত্রগুলো অতিদ্রুত বিভিন্ন শাখা ওয়ারী বন্টন করা হয়।

২।

চিঠিপত্র প্রেরণ

অত্র কার্যলয়ের বিভিন্ন শাখা (রাজস্ব, এলজি ও স্ট্যাম্প শাখা ব্যতীত) হতে প্রাপ্ত চিঠিপত্রসমূহ প্রয়োজনীয় সার্ভিস স্ট্যাম্প সংযোজন পূর্বক পোষ্ট অফিসের মাধ্যমে প্রাপকের অনুকূলে প্রেরণ করা হয়।

যথাসম্ভব দ্রুত পত্রগুলো প্রাপকের নিকট প্রেরণের ব্যবস্থা করা হয়।

৩।

বিভিন্ন প্রকার জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দিবস উদযাপন

স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, শহীদ দিবস, ১লাবৈশাখ ইত্যাদি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দিবস উদযাপনের লক্ষে যাবতীয় কার্যক্রম গৃহীত হয়।

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করা হয়।

৪।

ক্রীড়া ও সংস্কৃতি সংক্রান্ত

জেলা ও মহিলা ক্রীড়া সংস্থার যাবতীয় ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক কার্যক্রম সংক্রান্ত যোগাযোগ।

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করা হয়।

৫।

এনজিও বিষয়ক

ক) এনজিও বিষয়ক সভা অনুষ্ঠানসহ যাবতীয় কার্যক্রম

খ) ফারুকী ট্রাস্ট সংক্রান্ত কার্যক্রম

যথাসম্ভব দ্রুত সম্পন্ন করা হয়।

৬।

সার ও বীজ মনিটরিং

ক) জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসের সমম্বয়ে অনুষ্ঠিত সার ও বীজ মনিটরিং কমিটির সভার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন সংক্রান্ত কর্মকান্ড।

খ) সার ডিলার নিয়োগ সংক্রান্ত, সার বরাদ্দ সংক্রান্ত, সার সংক্রান্ত পত্রালাপ।

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করা হয়।

৭।

জেলা উন্নয়ন সমম্বয়

জেলা উন্নয়ন সমম্বয় সভা অনুষ্ঠানসহ উন্নয়ন সংশ্লিষ্ট প্রতিবন্ধকতা দূরীকরনের কার্যক্রম

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করা হয়।

৮।

খাদ্য শস্য

জেলা খাদ্য অফিসের সমম্বয়ে খাদ্য শস্য সংগ্রহ, সাইলো/ এলএসডিতে সংরক্ষিত খাদ্য মজুদ প্রতিবেদন প্রেরণ ও খাদ্যশস্যের চাহিদা ও খোলাবাজারে বিক্রয় সংক্রান্ত কার্যক্রম।

যথাসম্ভব দ্রুত সম্পন্ন করা হয়।

৯।

বিবিধ অনুদান

১। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল হতে প্রাপ্ত অনুদান সংশ্লিষ্টদের অনুকূলে প্রদান

২। ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় হতে প্রাপ্ত অনুদান সংশ্লিষ্ট ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে চেকের মাধ্যমে বিতরণ।

যথাসম্ভব দ্রুত সম্পন্ন করা হয়।

১০।

ধর্মীয় বিষয়াদি

ক) জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির নিয়মিত সভা অনুষ্ঠিত হয়।

খ) হজ্বের আবেদন ফরম বিতরণ ও জেলা প্রশাসক বরাবরে দাখিল করার পর হজ্ব যাত্রীদের তালিকা প্রনয়ণ করত: আবেদন ফরম হজ্ব অফিস, ঢাকায় প্রেরণ করা হয়্।

যথাসম্ভব দ্রুত সম্পন্ন করা হয়।

১১।

বিভিন্ন অভিযোগ তদন্ত ও নিস্পত্তি সংক্রান্ত

সাধারণ শাখায় প্রাপ্ত অভিযোগসমূহ সংশ্লিষ্ট বিভাগ কর্তৃক তদন্তপূর্বক নিষ্পত্তির প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়।

তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর সর্বোচ্চ ০৭দিনের মধ্যে নিস্পত্তির ব্যবস্থা করা হয়।

১২।

বিবিধ

বিবিধ স্মারকলিপি সংক্রান্ত কার্যক্রম

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করা হয়।

শাখার নাম: জে, এম শাখা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
নাগরিক সেবা

জে, এম শাখায় সম্পাদিত কাজ ও প্রদত্ত নাগরিক সেবা সমূহঃ

 

ক্রমিক নং

প্রদত্ত সেবা সমূহ

সেবা প্রাপ্তির প্রক্রিয়া

সেবা প্রাপ্তির জন্য প্রয়োজনীয় সময়

০১

আইন-শৃংখলা রক্ষার্থে ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ

আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির অবনতিকারী কোন ঘটনা সংঘটনের প্রেক্ষিতে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট/অতিরিক্তজেলা ম্যাজিস্ট্রেট বরাবরে আবেদন করতে হবে।

প্রয়োজনীয় কার্যক্রম সম্পাদনের মাধ্যমে তাৎক্ষণিক ভাবে ব্যবস্থা নেয়া হয়।

০২

হলফনামা সম্পাদন

দায়িত্ব প্রাপ্ত বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের বরাবরে ২০০/- টাকার কোর্ট ফি সহকারে আবেদন করতে হয়।

আবেদন প্রাপ্তির কার্যদিবসে আবেদনকারী (হলফ প্রদানকারী), বিজ্ঞ আইনজীবি ও সাক্ষির উপস্থিতিতে হলফনামা সম্পাদন করা হয়।

০৩

বিষ লাইসেন্স

প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করতে হবে।

আবেদন প্রাপ্তির পর তদমত্ম সাপেক্ষেসর্বোচ্চ ০১ (এক) মাসের মধ্যে লাইসেন্স ইস্যু/নিষ্পত্তি করা হয়।

০৪

কারাগারে বিচারাধীন আসামীদের উন্নত চিকিৎসা ও তাদের সাথে সাক্ষাৎ

জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বরাবরে আবেদন করতে হয়।

আবেদন প্রাপ্তির ০৩ (তিন) কার্যদিবসের মধ্যে নিষ্পত্তি করা হয়।

০৫

জাতীয় দিবস উপলক্ষেকারাবন্দী মুক্তি সংক্রামত্ম

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের চাহিদার প্রেক্ষিতে এতদ সংক্রান্ত জেলা কমিটির সিদ্ধান্তঅনুযায়ী নির্ধারিত ছক মোতাবেক মুক্তিযোগ্য বন্দিদের তালিকা প্রেরণ করা হয়।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পত্র প্রাপ্তির পর সম্ভাব্য দ্রম্নততম সময়ের মধ্যে নিষ্পত্তি করা হয়।

০৬

বিজ্ঞ পিপি/অতিঃ পিপি/বিশেষ পিপি/এপিপিদের সম্মানী পরিশোধ সংক্রান্ত

জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বরাবরে সম্মানী ভাতার বিল দাখিল করতে হয়।

বরাদ্দ থাকা ও বিল অনুমোদন সাপেক্ষে১৫ কার্যদিবসের মধ্যে পরিশোধের ব্যবস্থা করা হয়।

০৭

বেওয়ারিশ লাশ দাফনের ব্যয় সংক্রান্ত

প্রয়োজনীয় প্রমাণপত্রাদিসহ যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বরাবরে আবেদন করতে হয়।

বরাদ্দ থাকা ও বিল অনুমোদন সাপেক্ষে১৫ কার্যদিবসের মধ্যে বিল পরিশোধ করা হয়।

০৮

মাইক ব্যবহারের অনুমতি সংক্রান্ত

জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করতে হয়।

আবেদন প্রাপ্তির ০৩ (তিন) কার্যদিবসের মধ্যে নিষ্পত্তি করা হয়।

০৯

বিভিন্ন ধর্মীয় ও সামাজিক অনুষ্ঠানের অনুমতি

জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করতে হয়।

আবেদন প্রাপ্তির পর তদন্ত সাপেক্ষেসম্ভাব্য দ্রুততম সময়ের মধ্যে নিষ্পত্তি করা হয়।

১০

জ্বালানী তেল ও সিএনজি ব্যবসার অনাপত্তি সনদ প্রদান

জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করতে হবে।

আবেদন প্রাপ্তির পর তদন্ত সাপেক্ষেসর্বোচ্চ ০১ (এক) মাসের মধ্যে নিষ্পত্তি করা হয়।

১১

ছাপাখানা ও সংবাদপত্রের ঘোষণা সংক্রান্ত

জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করতে হবে।

আবেদন প্রাপ্তির পর তদন্ত প্রতিবেদন প্রাপ্তি সাপেক্ষেসর্বোচ্চ ১৫ (পনের) কার্যদিবসের মধ্যে নিষ্পত্তি করা হয়।

১২

আগ্নেয়াস্ত্র লাইসেন্স ইস্যু ও নবায়নকরণ

নির্ধারিত ফরমে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রাদিসহ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বরাবরে আবেদন করতে হবে।

(১)পিস্তল ও রিভলবারের

ক্ষেত্রে তদন্ত প্রতিবেদন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়েরঅনাপত্তি প্রাপ্তির সর্বোচ্চ ০৭ (সাত) কার্যদিবসের মধ্যে লাইসেন্স ইস্যুকরা হয়।

(২) বন্দুক/শর্টগান লাইসেন্সের ক্ষেত্রে তদন্ত প্রতিবেদনপ্রাপ্তি সাপেক্ষেসর্বোচ্চ ০৭ (সাত) কার্যদিবসের মধ্যে লাইসেন্স ইস্যু করাহয়ে থাকে।

(৩) লাইসেন্স নবায়নের ক্ষেত্রে প্রতি বছর ডিসেম্বর মাসে নবায়নের জন্য তারিখ নির্ধারণ পূর্বক বিজ্ঞপ্তি জারী করা হয়।

১৩

সিনেমা হল লাইসেন্স ইস্যু ও নবায়ন এবং সেন্সরসীপ সংক্রান্ত

নির্ধারিত ফরমে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রাদিসহ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বরাবরে আবেদন করতে হবে।

নতুনসিনেমাটোগ্রাফী লাইসেন্স ইস্যু করার পূর্বে সংশ্লিষ্ট এলাকার জনসাধারণেরআপত্তি আছে কিনা এবং প্রস্তাবিত এলাকা পরিদর্শন করে মসজিদ, মন্দির, স্কুল-কলেজ, মাদ্রাসা, কবরস্থান ইত্যাদি পারিপার্শ্বিক বিষয় যাচাইয়াঅনাপত্তির ভিত্তিতে সম্ভাব্য দ্রুততম সময়ের মধ্যে বিধিমোতাবেক লাইসেন্সইস্যু করা হয় এবং প্রতি বছর ডিসেম্বর মাসে পরবর্তী সনের জন্য লাইসেন্সনবায়ন করা হয়।

১৪

যাত্রা, সার্কাস,মেলা, যাদু প্রদর্শনী, পুতুলনাচ, হাউজী ও লটারী আয়োজনের অনুমতি সংক্রান্ত

জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করতে হয়।

আবেদন প্রাপ্তির পর তদন্ত সাপেক্ষেসর্বোচ্চ ০১ (এক) মাসের মধ্যে লাইসেন্স ইস্যু/নিষ্পত্তি করা হয়।

১৫

আতশবাজী লাইসেন্স ইস্যু ও নবায়নকরণ

জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করতে হয়।

আবেদন প্রাপ্তির পর তদন্ত সাপেক্ষেসর্বোচ্চ ০১ (এক) মাসের মধ্যে লাইসেন্স ইস্যু/নিষ্পত্তি করা হয়।

১৬

মুক্তিযোদ্ধাদের বিভিন্ন আবেদন অগ্রবর্তীকরণ ও মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের দাফন-কাফনে ব্যয়িত অর্থ পরিশোধ

জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করতে হয়।

 
শাখার নাম: স্থানীয় সরকার শাখা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
নাগরিক সেবা

ক্রমিক নং

সেবার নাম

সেবা প্রাপ্তির প্রক্রিয়া

০১.

জন্ম ও মৃত্যূ নিবন্ধন সনদ বিতরণ সংক্রান্ত

পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক প্রদত্ত জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন সনদ বিতরণ কার্যক্রম তত্ত্বাবধান, এ সংক্রান্ত তথ্যাদি সংরক্ষণ। পৌরসভা/ইউপি চেয়ারম্যান, সদস্য,সচিব ও সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্মকর্তা/কর্মচারীদের প্রশিক্ষণ প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ।

০২.

নির্বাচন সংক্রান্ত

জাতীয় নির্বাচন/ স্থানীয় নির্বাচনের প্রশাসনিক প্রস্ত্ততি/ আয়োজন, ভোটার তালিকা প্রনয়ন, ভোট কেন্দ্র নির্ধারণ, মনোনয়নপত্র গ্রহন, বাছাই ও নির্বাচন পরিচালনা সম্পন্ন করা। তাছাড়া জেলা নির্বাচন কার্যালয় কর্তৃক নির্বাচন সংক্রান্ত গৃহীত বিভিন্ন কার্যক্রমের তত্ত্বাবধান।

০৩.

সার ও বীজ মনিটরিং সংক্রান্ত

অত্র জেলার সার ও বীজ বিতরণ, বরাদ্দ প্রদান, উত্তোলন  কার্যাদি মনিটরিং করা হয়, ডিলার নিয়োগ কার্যক্রম বিধি মোতাবেক নিষ্পন্ন করা হয় ।

০৪.

 ইউনিয়ন পরিষদের সচিব/ দফাদার ও মহল্লাদারদের নিয়োগ ও অন্যান্য বিষয়াদি

 সংক্রান্ত।

ইউনিয়র পরিষদ সচিব/ দফাদার/মহল্লাদারদের নিয়োগ, বদলী এবং তাদের সংস্থাপন বিষয়াদি ব্যবস্থাপনা ও সংরক্ষণ।

০৫.

স্যানিটেশন সংক্রান্ত

 বিভিন্ন উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদের আওতাধীন এলাকায় বিদ্যমান স্যানিটেশন ও পয়ঃনিষ্কাশন সংক্রান্ত কার্যাদি তত্ত্বাবধান।

০৬.

উন্নয়ন মূলক কার্যক্রম সংক্রান্ত

 পৌরসভা, উপজেলা পরিষদ এবং ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক গৃহীত বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রম তত্ত্বাবধান ও তথ্যাদি সংরক্ষন।

০৭.

ইউনিয়ন পরিষদের বাজেট ও এ্যাসেসমেন্ট তালিকা অনুমোদন সংক্রান্ত

ইউনিয়ন পরিষদ সমূহের আর্থিক  সনের বাজেট ও এসেসমেন্ট  যাচাই অন্তে অনুমোদন করা হয়। 

 

০৮.

দরপত্র সিডিউল  সংক্রান্ত

 জেলা পরিষদ, এলজিইডি, পৌরসভা, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন প্রকল্প ও হাট-বাজারের দরপত্র বিক্রি, দরপত্র বাক্সে গ্রহন ও বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহন।

০৯.

হাট-বাজার

 সংক্রান্ত

এ জেলার বিভিন্ন উপজেলায় বিদ্যমান হাট-বাজারের টোল চার্ট অনুমোদন, ইজারা সংক্রান্ত তথ্যাদি সংরক্ষণ।                                                                             

 

১০.

উপজেলা পরিষদের কার্যাবলী তত্ত্বাবধান

উপজেলা পরিষদের সম্পত্তি ও অন্যান্য বিষয়াদি সংক্রান্ত কার্যক্রম তদারকি, তথ্য সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনা।

১১.

অভিযোগ সংক্রান্ত

পৌরসভা চেয়ারম্যান/ প্রশাসক/ কমিশনার, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান/ সদস্য/ সচিব/ দফাদার/মহল্লাদার এর বিরুদ্ধে  ও অন্যান্য কার্যাদির বিরুদ্ধেত অভিযোগ পাওয়ারপর তদন্তকারী কর্মকর্তা নিয়োগ করে তদন্ত করানো হয়।প্রয়োজনীয়  ক্ষেত্রে তদন্ত প্রতিবেদন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে/নির্বাচন কমিশনে ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে  প্রেরণ করা হয়ে থাকে এবং অবশিষ্টগুলো এ কার্যালয়ে বিধি মোতাবেক নিষ্পত্তি করা হয় ।

শাখার নাম: নেজারত শাখা ,ব্রাহ্মণবাড়িয়া
নাগরিক সেবা

ক্রমিক নং

সেবার নাম

সেবা প্রাপ্তির প্রক্রিয়া

সেবা প্রাপ্তির জন্য প্রয়োজনীয় সময়

০১

সকল প্রকার বিল ট্রেজারী হতে পাশকরণ, চেক ব্যাংকে জমাদান, ব্যাংক হতে অর্থ উত্তোলন ও বিতরণ এবং ক্যাশ বহি, সাবসিডিয়ারী ক্যাশ বহি, আনুষাংঙ্গিক রেজিষ্টার, ট্রেজারী রেমিটেন্স ইত্যাদি লিখন ও সংরক্ষণ

৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের বেতন ভাতাদি উত্তোলন পূর্বক যথাযথভাবে বিতরণ করা হয় এবং সংশিস্নষ্ট রেজিষ্টারসমূহ যথাযথভাবে সংরক্ষণ করা হয়।

ব্যাংক হতে অর্থ প্রাপ্তি সাথে সাথে বন্টনের ব্যবস্থা করা হয়।

০২

বিশেষ বাহকের ব্যবস্থা করণ

প্রশাসনিক জরম্নরী প্রয়োজনে বিশেষ বাহক মারফত কার্য সম্পাদন করা হয়

বিভিন্ন শাখা হতে চাহিদা সাপেক্ষে প্রেরণের ব্যবস্থা করা হয়।

০৩

নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ১৯৮১ এর আওতায় স্বর্ণ, কাপড়, লৌহ, সিমেন্ট, স্বর্ণশিল্প (কারিগরি), সিগারেট , সুতা, শিশু খাদ্য দ্রব্য ডিলিং লাইসেন্স ব্যাংক চালানের মাধ্যমে নির্ধারিত ফি আদায় সাপেক্ষে নীতিমালা অনুযায়ী ইস্যু ও নবায়ন করা হয়। প্রচলিত নীতিমালা অনুযায়ী ব্যাংক চালানের মাধ্যমে নির্ধারিত ফি আদায় সাপেক্ষে জেলায় অবস্থিত আবাসিক হোটেল ও রেসেত্মারার লাইসেন্স ইস্যু ও নবায়ন করা হয়ে থাকে। তাছাড়া এসিড নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০০৪ এবং ইট পোড়ানো নিয়ন্ত্রণ আইন ২০০১ অনুযায়ী নির্ধারিত ফি ব্যাংক চালানের মাধ্যমে আদায় সাপেক্ষে লাইসেন্স ইস্যু ও নবায়ন করা হয়ে থাকে। এ সকল ব্যাংক চালানের বিবরণ সংশিস্নষ্ট রেজিষ্টারে যথাযথভাবে সংরক্ষণ করা হয়ে থাকে।

 

 

সরকারী রাজস্ব আদায়ের স্বার্থে আবেদনকারীর অনুকহলে সংশিস্নষ্ট অর্থ বছরে লাইসেন্স ইস্যু করা এবং প্রতি অর্থ বছরের প্রারম্ভে ইস্যুকৃত সকল প্রকার লাইসেন্স নবায়নের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

ক) লাইসেন্স প্রদানের ক্ষেত্রে এতদসংক্রামত্ম তদমত্ম প্রতিবেদন পাওয়ার পর লইসেন্স ফি জমাদান সাপেক্ষে সর্বোচ্চ ১৫(পনের) দিনের মধ্যে লাইসেন্স দেয়া হয়।

খ) লাইসেন্স নবায়নের ‌ক্ষেত্রে আবেদন পত্র প্রাপ্তির পর ও নবায়ন ফি জমাদান সাপেক্ষে সর্বোচ্চ ০৭ দিনের মধ্যে নবায়ন করা হয়।

ক্রমিক নং

সেবার নাম

সেবা প্রাপ্তির প্রক্রিয়া

সেবা প্রাপ্তির জন্য প্রয়োজনীয় সময়

০৪

প্রটোকল সংক্রামত্ম কাজে ও প্রশাসনিক জরম্নরী প্রয়োজনে যানবাহন রিকুইজিশন, খাত ভিত্তিক জ্বালানী সরবরাহ এবং এতদসংক্রামত্ম জ্বালানীর হিসাব ও নগশীট যথাযথভাবে সংরক্ষণ করা হয়।

ভিভিআইপি ও ভিআইপিগণের ব্যবহারের নিমিত্ত প্রয়োজনীয় যানবাহন ও জ্বালানীর ব্যবস্থা করা হয়।

বার্তা পাওয়ার সাথে সাথে

০৫

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় আগত ভিভিআইপ, ভিআইপি ও উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের সফরসূচী তৈরী ও সংশিস্নষ্টদের মধ্যে বিতরণ নিশ্চিত করণ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় ভিভিআইপি, ভিআইপিগণের সফরসূচী পাওয়া মাত্র সংশিস্নষ্টদের মধ্যে বিতরণ নিশ্চিত করা হয়।

বার্তা পাওয়ার সাথে সাথে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

০৬

সুপ্রিমকোর্ট, হাইকোর্টসহ বিভিন্ন আদালত হতে প্রাপ্ত নোটিশ, সমন/পরোয়ানা এবং বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অত্র কার্যালয়ের অন্যান্য শাখা হতে প্রাপ্ত পত্র সমূহ যথাযথভাবে জারীর ব্যবস্থা নিশ্চিত করণ

আদালত হতে প্রাপ্ত নোটিশ, সমন/পরোয়ানা যথাযথভাবে জারীর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

নির্ধারিত তারিখের মধ্যে এসআর কপি প্রেরণের ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়।

০৭

ভিআইপি/ভিভিআইপিগণের লিষ্ট প্রণয়ন ও সংরক্ষণ, প্রযোজ্য ক্ষেরে বিল বন্টন, ভিআইপি/ভিভিআইপিগণের থাকা ও যাতায়ত নিশ্চিতকরণ এবং সকল জাতীয় দিবস ও সরকার ঘোষিত অনুষ্ঠানমালা উদযাপন সংক্রামত্ম নথি সংরক্ষণ ও ব্যবস্থা গ্রহণ

নির্ধারিত তারিখ ও সময়ের পূর্বেই আগত অতিথিবৃন্দ ও ভিআইপি/ভিভিআইপিগণের আগমন, জাতীয় দিবস ও অন্যান্য অনুষ্ঠানমালার আমন্ত্রন পত্র/অফিস স্মারক যথাস্থানে বন্টনের ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়।

নির্ধারিত তারিখের পূর্বেই সকল প্রস্ত্ততি সম্পন্ন করা হয়।

শাখার নাম: ট্রেজারি শাখা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
নাগরিক সেবা

ট্রেজারী শাখায় সম্পাদিত কাজ ও প্রদত্ত নাগরিক সেবা সমূহ

 

ক্রমিক নং

সেবার নাম

সেবা প্রাপ্তির প্রক্রিয়া

সেবা প্রাপ্তির প্রয়োজনীয় সময়

জনসাধারণ ও ভেন্ডারগণের চাহিদা অনুযায়ী মজুদ সাপেক্ষে জুডিশিয়াল/নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প সরবরাহ

স্ট্যাম্প প্রত্যাশী ব্যক্তি/ভেন্ডারগণকে চালান প্রস্তুত করে ট্রেজারী শাখায় জমা প্রদান করে মজুদ এবং চালানের কোড নম্বর ভেরিফাই করে ব্যাংকে চালান জমা দিতে হয়। অতঃপর চালান কপি এবং ব্যাংকের স্ক্রলসহ ট্রেজারী শাখায় জমা প্রদান করতে হয় ।

সপ্তাহের প্রতি রবি এবং বৃহস্পতিবারে সরবরাহ করা হয় ।

সকল সরকারি অফিস ও ডাকঘরের চাহিদা অনুযায়ী সার্ভিস ডাকটিকেট/সাধারণ ডাকটিকেট ও পোস্টাল খাম সরবরাহ

ডাকটিকেট প্রত্যাশী সরকারী অফিস/ ডাকঘরকে চালান কপি প্রস্তুত করে ট্রেজারী শাখায় জমা প্রদান করে মজুদ এবং চালানের কোড নম্বর ভেরিফাই করে ব্যাংকে চালান জমা দিতে হয় । অতঃপর চালান কপি এবং ব্যাংকের স্ক্রলসহ ট্রেজারী শাখায় জমা প্রদান করতে হয় ।

সপ্তাহের প্রতি রবি এবং বৃহস্পতিবারে সরবরাহ করা হয় ।

যাবতীয় পাবলিক পরীক্ষার গোপনীয় কাগজপত্র সংরক্ষণ ও সময়মত সরবরাহ

যাবতীয় পাবলিক পরীক্ষার গোপনীয় কাগজপত্র ঢাকা হতে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং প্রয়োজনীয় পুলিশ ফোর্সের মাধ্যমে এনে ট্রেজারীতে সংরক্ষণ করা হয়।

পরীক্ষার দিনগুলোতে ট্রেজারী অফিসারের উপস্থিতিতে পরীক্ষার সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার উপস্থিতিতে প্রশ্নপত্র সরবরাহ করা হয় ।

মূল্যবান সম্পদ ও গোপনীয় দ্রব্যাদি নিরাপদ হেফাজতে সংরক্ষণ

জনগণ অথবা যে কোন সংস্থার মূল্যবান সম্পদ ও গোপনীয় দ্রব্যাদি বিধি মোতাবেক নিরাপদ হেফাজতে সংরক্ষণ করা হয় এবং চাহিদা অনুযায়ী প্রাপককে সরবরাহ করা হয় ।

প্রাপকের চাহিদা অনুযায়ী ।

বিভিন্ন মামলায় আটক মূল্যবান দ্রব্যাদি নিরাপদ হেফাজতে সংরক্ষণ ও সংশ্লিষ্ট আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী সরবরাহ

বিভিন্ন মামলায় আটক মূল্যবান দ্রব্যাদি আটককারী আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তা ও ট্রেজারী অফিসারের উপস্থিতিতে নিরাপদ হেফাজতে সংরক্ষণ করা হয় ।

সংশ্লিষ্ট আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী সরবরাহ করা হয়।

অলিখিত পাসপোর্ট সংরক্ষণ ও পাসপোর্ট অফিসের চাহিদানুযায়ী সরবরাহ

একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অথবা পাসপোর্ট অফিসার এবং পুলিশ ফোর্সসহ ঢাকা হতে পাসপোর্ট সংগ্রহ করে ট্রেজারীতে সংরক্ষণ করা হয় ।

পাসপোর্ট শাখার চাহিদানুযায়ী প্রতিদিন সরবরাহ করা হয়।

শাখার নাম: জেনারেল সার্টিফিকেট শাখা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
নাগরিক সেবা

ক্রমিক নং

সেবার নাম

সেবা প্রাপ্তির প্রক্রিয়া

সেবা প্রাপ্তির জন্য প্রয়োজনীয় সময় 

 

 

সরকারী দাবী আদায় আইন - ১৯১৩ এর আওতায় সরকারী পাওনা আদায় করা হয়।

সরকারী দাবী আদায় আইন ১৯১৩ এর ১ নং তফসিলে উল্লিখিত  সকল সরকারী পাওনা আদায়ের  স্বার্থে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্টান হতে রিকুইজিশন (৫নং ধারা ) এর মাধ্যমে মামলা  আরম্ভ ও আইন অনুযায়ী সরকারী দাবী আদায়ে পরবর্তী কার্যক্রম পরিচালনা করা হয় ।

অত্র আদালতে মামলা দায়ের এর পর হতে মামলা নিষ্পন্নকাল পর্যন্ত

শাখার নাম: এস,এ শাখা , ব্রাহ্মণবাড়িয়া
নাগরিক সেবা

ক্রমিক নং

সেবার নাম

সেবা প্রাপ্তির প্রক্রিয়া

সেবা প্রাপ্তির জন্য প্রয়োজনীয় সময়

০১

হাট বাজার পেরীফেরী সংক্রামত্ম

হাট বাজার পেরীফেরীর ব্যাপারে সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর কার্যালয় হতে সার্ভেয়ার/কানুনগো দ্বারা নকশা প্রস্ত্ততক্রমে বিবিধমোকদ্দমা রম্নজু করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে অত্রাফিসে প্রেরণ করা হয় ।

অত্রাফিসের বিবিধ মামলা আসার পরীক্ষা নিরীক্ষা করে সর্বোচ্চ ২৫ দিনের মধ্যে অনুমোদন দেয়া হয় ।

০২

হটে বাজারের ভূমি একসনা বন্দোবস্থ র্সক্রামত্ম

হাট বাজারের ভূমি একসনা বন্দোবস্থের ব্যাপারে সহকারী কমিশনার (ভূমি) প্রয়োজনীয় কাজপত্রসহ একসনা লাইসেন্স ভিত্তিক বিবিধ মোকদ্দমা রম্নজু করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে প্রেরণ করা করেন ।

অত্রাফিসে একসনা লাইসেন্স ভিত্তিক বিবিধমোকদ্দমা আসার পর পরীক্ষা নিরীক্ষা করে সর্বোচ্চ এক মাসের মধ্যে অনুমোদন দিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বরাবরে নথিপ্রেরণ করা হয় ।

০৩

জলমহাল ইজারা সংক্রামত্ম

 

জলমহালের নীতিমালা অনুযায়ী জলমহালের ইজারার মেয়াদ শেষ হওয়ার  অব্যাবহিত পূর্বে জনসাধারনের মধ্যে প্রচারের জন্য জাতীয় দৈনিক পত্রিকা, বিভিন্ন অফিসের নোটিশবোর্ডে এবং জনবহুল স্থানে নোটিশ দিয়ে নির্ধারিত তারিখের মধ্যে দরপত্র আহববান করা হয় ।

জলমহালের নীতিমালা অনুযায়ী আবেদনপত্র পাওয়ার পর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক      ( রাজস্ব), আরডিসি  আবেদনপত্র যাচাই ও বাছাইক্রমে জেলা জলমহাল  ব্যবস্থাপনা ও বন্দোবসত্ম কমিটিতে আলোচনাক্রমে সিদ্ধামত্ম গ্রহণ করা হয়।

০৪

নতুন হাটবাজার ইজারা সংক্রামত্ম

নতুন হাট বাজার সৃজন করার জন্য নীতিমালা অনুযায়ী জনবহুল এলাকায় কোন দানশীল ব্যক্তি কর্তৃক দানকৃত ভূমি/সরকারের খাস জমিতে নতুন বাজার সৃজন করার লক্ষ্য সহকারী কমিশনার(ভূমি) কর্তৃক বিবিধ মোকদ্দমা সৃজন পূর্বক সুপারিশ সহকারে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে অত্রাফিসে প্রেরণ করা হয় ।

নতুন হাট বাজার সৃজন  করার লক্ষ্য  বিবিধ মোকদ্দমা অত্রাফিসে আসার পর যাচাই/বাছাই/পরীক্ষা নিরিক্ষার পর বিভাগীয় কমিশনার মহোদয় বরাবরে নথি প্রেরণ করা হয়। এতে প্রায় ২০ দিন সময় লাগে।

০৫

বালু মহাল ইজারা সংক্রামত্ম

       বালুমহাল নীতিমালা অনুযায়ী প্রত্যেক  বাংলা সনের পৌষ, মাঘ ও ফাল্গুন মাসে ইজারা বন্দোবসত্ম প্রদানের জন্য  জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক পত্রিকা, নোটিশ বোর্ড এবং জনবহুল স্থানে বিজ্ঞপ্তি প্রচার করে দরপত্র আহবান করা হয়।

        বালুমহাল নীতিমালা অনুযায়ী দরপত্র প্রাপ্তির পর জেলা বালুমহাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা আহবান করা হয়। উক্ত কমিটিতে যাচাই বাছাই করে সর্বোচ্চ দরদাতার অনুকূলে ইজারা বন্দোবসত্ম প্রদান করা হয়।  পরবর্তীতে ৭(সাত) দিনের সময় দিয়ে ইজারাদারের নিকট পত্র প্রেরণ করা হয়।  ইজারাদার পত্র প্রাপ্তির পর এ শাখায়  নাজিরের নিকট ইজারার টাকা প্রদান করে ডি.সি.আর সংগ্রহ করেন। অতঃপর ইজারাদারের অনুকূলে দখল বুঝিয়ে দেয়ার জন্য সংশিস্নষ্ট সহকারী কমিশনার(ভূমি) এর নিকট পত্র প্রেরণ করা হয়। ইজারা বন্দোবসত্ম প্রদানের তারিখ হতে প্রায় ১৫দিন সময়ের মধ্যে ইজারা বন্দোবসেত্মর কার্যক্রম শেষ করা হয়।

 

 

০৬

কৃষি খাস জমি বন্দোবসত্ম সংক্রামত্ম

নীতিমালা অনুযায়ী কৃষি খাস জমি বন্দোবসত্ম প্রদানের লÿÿ সহকারী কমিশনার(ভূমি) প্রকৃত ভূমিহীনদের নিকট হতে দরখাসত্ম আহবান করেন। দরখাসত্ম জমা হওয়ার পর উপজেলা কৃষি খাস জমি বন্দোবসত্ম কমিটি কর্তৃক যাচাই/বাছাই করে বন্দোবসত্ম মোকদ্দমা সৃজন করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে এ অফিসে প্রেরণ করেন। 

কৃষি খাস জমি বন্দোবসেত্মর নথি এ অফিসে প্রেরণ করার পর কৃষি খাস জমি বন্দোবসত্ম নীতিমালা অনুযায়ী নথি পরীÿা নিরীÿা করে জেলা কৃষি খাস জমি বন্দোবসত্ম কমিটিতে উপস্থাপন করা হয়। কমিটি কর্তৃক পরীÿা-নিরীÿার পর বন্দোবসত্ম প্রসত্মাব অনুমোদন দেয়া হয়। এতে প্রায় ১(এক) মাস সময় লাগে।

০৭

অকৃষি খাস জমি বন্দোবসত্ম সংক্রামত্ম

নীতিমালা অনুযায়ী অকৃষি খাস জমি বন্দোবসত্ম দরখাসত্ম এ অফিসে দাখি০ল করার পর দরখাসত্মটি সহকারী কমিশনার(ভূমি) এর নিকট প্রেরণ করা হয়। সহকারী কমিশনার(ভূমি) দরখাসেত্মর তফসিল অনুযায়ী তদমত্ম করে অকৃষি বন্দোবসত্ম মোকদ্দমা সৃজন পূর্বক উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে এ অফিসে প্রেরণ করেন।

অকৃষি বন্দোবসত্ম মোকদ্দমা নথি এ অফিসে আসার পর পরীÿা নিরীÿা করে সর্বোচ্চ ২৫ দিনের মধ্যে বিভাগীয় কমিশনার মহোদয় বরাবর  অনুমোদনের জন্য প্রেরণ করা হয়।

০৮

ভিপিমোকদ্দমা সংক্রামত্ম

ভিপি মোকদ্দমা লীজ গ্রহিতা লীজ নবায়নের জন্য এ অফিসে দরখাসত্ম করার পর দরখাসত্মটি সহকারী কমিশনার(ভূমি) এর বরাবরে প্রেরণ করে তদমত্ম প্রতিবেদন চাওয়া হয়।

সহকারী কমিশনার(ভূমি) এর প্রতিবেদন পাওয়ার পর নথিটি পরীÿা নিরীÿা করে সর্বোচ্চ ১৫ দিনের মধ্যে লীজমানি পরিশোধের অনুমোদন দেয়া হয়।

০৯

জরিপ সংক্রামত্ম

সর্বশেষ সার্কুলার মোতাবেক সরকারের খাসজমির সাথে সংযুক্ত ব্যক্তি মালিকানা ভূমি সরকারী সার্ভেয়ার দ্বারা জরিপ করে সীমানা নির্ধারণ করা হয়।

সরকারী খাস জমির সাথে সংযুক্ত ব্যক্তি মালিকানা ভূমি পৃথক করাতে একদিকে সরকারের জমির সীমানা এবং ব্যক্তি মালিকানা জমির সীমানা চিহ্নিত হয়। এতে উভয়ের স্বার্থ রÿÿত হয়। এতে সময় লাগে সর্বোচ্চ ১৫ দিন ।

শাখার নাম: রেকর্ডরুম শাখা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
নাগরিক সেবা

ক্রঃনং

সেবার নাম

সেবা প্রাপ্তির প্রক্রিয়া

সেবা প্রাপ্তির প্রয়োজনীয় সময়

০১

খতিয়ানের জাবেদা নকল সরবরাহ করণ

প্রতি খতিয়ানের জন্য আবেদনকারীকে সাধারণ আবেদনের ক্ষেত্রে কোর্টফি ৮/- টাকা, খতিয়ানের কোর্ট ফি ১/- টাকাসহ মোট ৯/-, জরম্নরী আবেদনের ক্ষেত্রে কোর্টফি ১৬/- টাকা, খতিয়ানের কোর্টফি ২/- টাকাসহ মোট ১৮/- টাকা কোর্টফি দিয়ে নির্ধারিত ফরমে থানা,মৌজা, খতিয়ান নম্বর ও দাগ নম্বর উলেস্নখ পূর্বক আবেদন করতে হয়।

সাধারণ আবেদনের ক্ষেত্রে ০৭(সাত) কার্যদিবস ও জরম্নরী আবেদনের ক্ষেত্রে ০৩(তিন) কর্মদিবসের মধ্যে জাবেদা খতিয়ানের নকল সরবরাহ করা হয়।

০২

ফৌজদারী মামলার জাবেদা  নকল সরবরাহ করণ

ফৌজদারী মামলার জাবেদা নকল সংগ্রহকরণের জন্য আবেদনকারীকে নির্ধারিত ৫/- এবং জরম্নরী ভিত্তিতে ১০/-কোর্টফিসহ নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হয়। উক্ত আবেদন প্রাপ্তির পর তা সংশিস্নষ্ট অফিস/আদালতেপ্রেরণ করা হয়।

অফিস/আদালত হতে নথি প্রাপ্তির পর আবেদনকারীর নিকট হতে প্রয়োজনীয় কোর্টফি ও ফলিও প্রাপ্তি সাপেক্ষে আবেদনকারীকে ০৩(তিন) কর্মদিবসের মধ্যে অনুলিপি সরবরাহ করা হয়।

০৩

মৌজা  ম্যাপ সরবরাহ করণ

বিক্রির জন্য মৌজা ম্যাপ মজুদ থাকলে মৌজা ম্যাপ সরবরাহের ক্ষেত্রে সাধারণ আবেদনেরক্ষেত্রে কোর্টফি ৫/- টাকা এবং জরম্নরী আবেদনের ক্ষেত্রে কোর্টফি ১০/- টাকার কোর্টফিসহ নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হয়। উক্ত আবেদনের প্রেক্ষিতে ১-৪৬৩৭-০০০১-১২২১ নং কোড নম্বরে ৩৫০/-(তিনশত পঞ্চাশ) টাকার চালান সোনালী  ব্যাংকে প্রদান করতে হয়।

চালান প্রাপ্তির সাপেক্ষে ০২(দুই) কর্মদিবসে ম্যাপ সরবরাহ করা হয়।

০৪

রাজস্ব ও বিবিধ মামলার জাবেদা নকল সরবরাহ করণ

জমা খারিজ, আপীল, ভিপি, এল.এ, সার্টিফিকেট ও বিবিধ মোকদ্দমার  নকলের জন্য নির্ধারিত ফরমে ৫/-টাকার কোর্টফি দিয়ে আবেদন করলে আবেদনটি সংশিস্নষ্ট অফিসে প্রেরণ করা হয়।

সংশিস্নষ্ট অফিস হতে নথি প্রাপ্তির পর আবেদনকারীর নিকট হতে প্রয়োজনীয় কোর্টফি ও ফলিও প্রাপ্তি সাপেক্ষে ০৩(তিন) কর্মদিবসের মধ্যে নকল সরবরাহ করা হয়।

০৫

তথ্য সরবরাহ

নির্ধারিত ফরমে ১০/-টাকার কোর্টফি দিয়ে সন্ধান জানার জন্য আবেদন করতে হয়।

আবেদনকারীকে০৩(তিন) কার্যদিবসের মধ্যে তথ্য সরবরাহ করা হয়।

শাখার নাম: এল,এ শাখা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
নাগরিক সেবা

এল এ শাখা

 

ক্রমিক নং

সেবার নাম

সেবা প্রাপ্তির প্রক্রিয়া

সেবা প্রাপ্তির প্রয়োজনীয় সময়

০১

স্থাবর সম্পত্তি অধিগ্রহণ

স্থাবর সম্পত্তি অধিগ্রহণ ও হুকুম দখল অধ্যাদেশ ১৯৮২ এর আত্ততায় অধিগ্রহণ কার্যক্রমের ধারাবাহিকতা।

 

১। প্রত্যাশী সংস্থা হইতে পূণাঙ্গ প্রস্তাব প্রাপ্তির পর ২১ দিনের মধ্যে জেলা প্রশাসক মহোদয় অথবা জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) অথবা (এল,এ,ও) এবং সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ প্রস্তাবিত ভূমির সম্ভাব্যতা যাচাই প্রতিবেদন দাখিল করিবেন। 

 

২। সম্ভাব্যতা যাচাই প্রতিবেদন প্রাপ্তির পর জেলা ভূমি বরাদ্দ কমিটির সভা আহবান ও তথায় অনুমোদন লাভ।

 

৩। জেলা ভূমি বরাদ্দ কমিটি কর্তৃক অনুমোদন লাভের পর এল,ও মামলা সৃজন

 

৪। পরবর্তীতে জমির মালিকগণকে ৩ ধারা মতে নোটিশ প্রদান এবং জেলা প্রশাসকের প্রতিনিধি ও প্রত্যাশী সংস্থার প্রতিনিধিসহ যৌথ তদন্ত, ফিল্ড বুক তৈরী ও ভিডিও রেকর্ডিং করণ।

 

৫। ৩ ধারা নোটিশ জারীর পরবর্তী ১৫ (পনের ) দিনের মধ্যে আপত্তি না পাওয়া গেলে এবং প্রস্তাবিত ভূমির পরিমাণ ৫০ বিঘার কম হলে জেলা প্রশাসক মহোদয় ১০ (দশ) দিনের মধ্যে ৪ (৩) ধারামতে অধিগ্রহণের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করিবেন এবং ৩ ধারার নোটিশ জারীর পর ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে যদি কোন মালিক আপত্তি দায়ের করেন তাহলে জেলা প্রশাসক মহোদয় পরবর্তী ৩০ (ত্রিশ) দিনের মধ্যে শুনানী গ্রহণ করে জমির পরিমাণ ৫০ বিঘার কম হলে বিভাগীয় কমিশনার মহোদয়ের নিকট ৪(২) ধারা মতে সুপারিশ সহকারে প্রতিবেদন প্রেরণ করবেন বিভাগীয় কমিশনার সবোর্চ্চ ৩০ (ত্রিশ) দিনের মধ্যে অধিগ্রহণের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নিকট নথি ফেরৎ দিবেন এবং জমির পরিমাণ ৫০ বিঘার উর্দ্ধে হলে ভূমি মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করিবেন। ভূমি মন্ত্রণালয় তৎপরবর্তী ৯০ (নব্বই) দিনের মধ্যে ৫(১) ধারা মতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে জেলা প্রশাসক বরাবরে নথি ফেরৎ দিবেন।

 

৬। অধিগ্রহণ প্রস্তাব অনুমোদনের পরপরই ৬ ধারা নোটিশ প্রদান করিতে হয়। ৬ ধারা নোটিশ জমির মালিকগণ প্রাপ্তির পর মালিকানার ব্যাপারে কোন জটিলতা থাকিলে অত্রাফিসকে অবহিত করিবেন।

 

৭।  ৬ ধারা নোটিশ প্রদানের  পরবর্তী ৩০ (ত্রিশ) দিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট সাবরেজিস্ট্রী অফিস হইতে জমির ক্রয়-বিক্রয় দলিলের তালিকা সংগ্রহ করে জমির মূল্যহার অনুমোদনক্রমে প্রাক্কলন প্রস্তুত করে অনুমোদিত প্রাক্কলন প্রত্যাশী সংস্থার বরাবরে প্রেরণ করিতে হইবে।

 

৮। প্রত্যাশী সংস্থাকে প্রাক্কলন প্রাপ্তির ৬০ (ষাট) দিনের মধ্যে ৭ (৪) ধারামতে তহবিল প্রেরণ করিতে হইবে নতুবা কেস আপনা আপনি বাতিল হয়ে যাবে এবং জেলা প্রশাসক মহোদয় ১২ (১) ধারা মতে গেজেট প্রকাশ করিবেন।

 

৯। প্রত্যাশী সংস্থা হইতে প্রাক্কলিত অর্থ প্রাপ্তির পর রোয়েদার বহির প্রস্তুতক্রমে ৭ ধারা মতে জমির মালিকগণকে ক্ষতিপূরণ গ্রহণ করার নোটিশ প্রদান করিতে হইবে এবং প্রত্যাশী সংস্থা হইতে অর্থ প্রাপ্তির ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে জমির দখল প্রত্যাশী সংস্থার বরাবরে বুঝাইয়া দিতে হইবে।

 

১০। প্রত্যাশী সংস্থা বেসরকারী হলে দখল হস্তান্তরে  পরপরই নির্ধারিত  ফরমে হস্তান্তর দলিল সম্পাদন করে দিতে হইবে সরকারী সংস্থার ক্ষেত্রে তা প্রয়োজন হবে না।  ট্রেসিং ক্লথে ৪ ফর্দ চূড়ান্ত নকশা প্রস্তুত করে দখল হস্তান্তরে সময় ১ ফর্দ প্রত্যাশী সংস্থাকে দিতে হইবে।

 

১১। দখল হস্তান্তরের ৯০ (নব্বই) দিনের মধ্যে ১১ (২) ধারা মতে অধিগ্রহণ সংক্রান্ত নির্ধারিত ফর্মে একটি ঘোষণা জেলঅ প্রশাসক কর্তৃক সরকারী গেজেটে প্রকাশের ব্যবস্থা করতে হবে। গেজেট বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরবর্তী ৯০ (নব্বই) দিনের মধ্যে জেলা প্রশাসক মহোদয় স্বউদ্যোগে প্রত্যাশী সংস্থার অনুকূলে নামজারী বা জমা খারিজ করার ব্যবস্থা করিবেন।

 

১২। সহকারী কমিশনার ভূমি অফিস হইতে নামজারী খতিয়ান প্রাপ্তির পর হিসাব সমন্বয়ের জন্য জেলা হিসাব রক্ষণ অফিসে প্রেরণ করিতে হইবে।

 

১৩। জেলা হিসাব রক্ষণ অফিস হইতে প্রতিবেদন পাওয়ার পর নথি মহাফেজ খানায় প্রেরণ করিতে হইবে।

 

অধিগ্রহণ প্রক্রিয়ায় ৩ ধারা মতে নোটিশ জারীর ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে  এবং ৬ ধারা মতে নোটিশ জারীর ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে সর্বসাধারণ যথাক্রমে অধিগ্রহণের বিরুদ্ধে ও মালিকানার বিষয়ে নিজে বা কৌশুলীল মাধ্যমে আপত্তি দাখিল  করিতে পারবেন এবং ১৫ (পনের) দিন সময় কালের মধ্যে শুনানী নিয়ে প্রয়োজনীয় মালিকানার কাগজপত্র পর্যালোচনা করে আপত্তি নিষ্পত্তি করা হয় এবং ৭ ধারা নোটিশ জারীর পর রোয়েদাদ মতে ক্ষতিগ্রস্থ জমির মালিকগণকে ক্ষতিপূরণ প্রদান করা হয়।

০২

১৯৮২ সনের স্থাবর সম্পত্তি হুকুম দখল অধ্যাদেশের ২ এর আত্ততায় অস্থায়ী হুকুম দখল ( রিকুইজিশন)

১। প্রত্যাশী সংস্থা হইতে পূর্ণাঙ্গ প্রস্তাব প্রাপ্তির পর ২১ দিনের মধ্যে জেলা প্রশাসক মহোদয় অথবা জেলঅ প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) অথবা (এল,এ,ও) এবং সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ প্রস্তাবিত ভূমির সম্ভাব্যতা যাচাই প্রতিবেদন দাখিল করিবেন।

 

২। সম্ভাব্যতা যাচা প্রতিবেদন প্রপ্তির পর জেলা ভূমি বরাদ্দ কমিটির সভা আহবান ও তথায় অনুমোদন লাভ।

 

৩। জেলা ভূমি বরাদ্দ কমিটি কর্তৃক অনুমোদন লাভের পর রিকুইজিশন মামলার সৃজন করা হয়।

 

৪। পরবর্তীতে জমির মালিকগণকে ১৯৮২ সনের ২ নং অধ্যাদেশের ১৮ ধারা মতে নোটিশ প্রদান করা হয় এবং জেলা প্রশাসকের প্রতিনিধি ও প্রত্যাশী সংস্থার প্রতিনিধিসহ যৌথ তদন্ত, ফিল্ডবুক তৈরী ও ভিডিও রেকর্ডিং করণ।

 

৫। পরবর্তীতে ১৮ (১) ধারার ক্ষমতাবলে জেলা প্রশাসক কর্র্ত জমির দখল গ্রহণ ও প্রত্যাশী সংস্থার বরাবরে উক্ত জমির দখল হস্তান্তর।

 

৬। প্রয়োজনীয় সময়ের জন্য বাৎসরিক ভাড়া হিসাবে সম্পত্তির প্রাক্কলন নির্ধারণ ও উহাতে অবস্থিত অবকাঠামো, দন্ডায়মান ফসল ও সম্ভাব্য ফসলের ক্ষতিপূরণ নির্ধারণ ও প্রাক্কলন প্রস্তুত করণ।

 

 ৭। প্রস্তুতকৃত প্রাক্কলন প্রত্যাশী সংস্থা হইতে প্রাপ্ত অর্থ জমির মালিকগনকে প্রদানের ব্যবস্থা করণ।

 

৮। অধ্যাদেশের ১৮ (৩) ধারা মতে সাধারণভাবে ২ (দুই) বৎসরের জন্য সম্পত্তি রিকুজিশন করা যায়, ২৪ নং অনুচ্ছেদের বর্ণনামতে প্রয়োজনীয় সময় অতিবাহিত হওয়ার পর রিকুইজিশনকৃত সম্পত্তির মূল মালিককে ফেরৎ প্রদানের বিধান রয়েছে। ১৮ (৩) উ-ধারা মতে ২(দুই) বৎসর অধিক সময় সরকারের অনুমোদনক্রমে সময় বৃদ্ধি করা যাবে।

মালিকানা স্বার্থ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি নিজে অথবা কৌশুলির মাধ্যমে আপত্তি দাখিল করতে পারেন। যথা সম্ভব তাড়াতারি শুনানী নিয়ে আপত্তি নিষ্পত্তি করা হয়। তবে এ ব্যাপারে নির্ধারিত কোন সময়সীমা নাই।

০৩

এল, এ মামলার প্রয়োজনীয় অংশের সংবাদ সরবরাহ

১। রেকর্ড ম্যানুয়েল অনুসারে এল, এ মামলার প্রয়োজনীয় অংশে স্বার্থ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির ক্ষতিপূরণে রোয়েদাদ, দাগসূচী ইত্যাদি বিষয়ে সংবাদ সরবারাহের বিধান রয়েছে।

রেকর্ড ম্যানুয়েল অনুসারে মহাফেজ খানার মাধ্যমে সর্বসাধারণকে চাহিত সংবাদ সরবরাহ করা হয়। তবে এ ক্ষেত্রে কোন নির্দিষ্ট সময়সীমা নেই।

শাখার নাম: সংস্থাপন শাখা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া।
নাগরিক সেবা

কর্মকর্তা/কর্মচারীদের নিয়োগ, বদলী, ছুটি, বিভিন্ন প্রশিক্ষণ, বিভাগীয় পরীক্ষা, কর্মচারীদের পেনশন ইত্যাদি।